অনাহারে শিশুরা, দক্ষিণ এশিয়ার জন্য ‘সতর্কতা

সংকটে জর্জরিত শ্রীলঙ্কায় খাদ্যসামগ্রী সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে যাওয়ায় মারাত্মক অপুষ্টিতে ভুগছে শিশুরা, যা দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ। সংকট নিরসনে যথাযথ ব্যবস্থা না নেয়া হলে আগামীতে এ অঞ্চলের অন্য দেশগুলোও একই ধরনের খাদ্যঘাটতিতে পড়তে পারে বলে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ।

শুক্রবার (২৬ আগস্ট) জাতিসংঘের শিশুবিষয়ক সংস্থার (ইউনিসেফ) দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক পরিচালক জর্জ লারিয়া-আদজেই বলেন, শ্রীলঙ্কায় খাদ্যপণ্যের দাম নাগালের বাইরে চলে যাওয়ায় পরিবারগুলো নিয়মিত খাবার এড়িয়ে যাচ্ছে। দেশটিতে রাতে ক্ষুধার্ত অবস্থায় ঘুমাতে যেতে হচ্ছে শিশুদের। এমনকি পরের বেলার খাবার কোথা থেকে আসবে সেই নিশ্চয়তাও নেই।

ব্যাপক খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা দক্ষিণ এশিয়ায় অপুষ্টি, দারিদ্র্য, রোগ ও মৃত্যু আরও বাড়িয়ে তুলবে বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন ইউনিসেফের এই কর্মকর্তা।
জাতিসংঘ বলছে, খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা ইতোমধ্যে শ্রীলঙ্কার সামাজিক সমস্যাগুলোকে আরও জটিল করে তুলেছে। সংস্থাটির অনুমান, শ্রীলঙ্কার অর্ধেক শিশুর জরুরি ভিত্তিতে কোনো না কোনো সহায়তা প্রয়োজন।

নির্যাতন বাড়ছে

লারিয়া-আদজেই বলেন, অর্থনৈতিক চাপ বৃদ্ধির কারণে শ্রীলঙ্কায় শিশু নির্যাতন, শোষণ এবং সহিংসতা বাড়ছে।

দেশটির বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি পরিচর্যায় কেন্দ্রে ইতোমধ্যে ১০ হাজার শিশু রয়েছে, যার বড় কারণ অতি দরিদ্রতা। যদিও এই প্রতিষ্ঠানগুলো শৈশব বিকাশের জন্য অপরিহার্য পারিবারিক সহায়তা দেয় না।

দুর্ভাগ্যবশত, শ্রীলঙ্কায় চলমান সংকট দেশটির আরও বেশি পরিবারকে তাদের সন্তানদের এসব প্রতিষ্ঠানে রাখতে বাধ্য করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.