স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে গরুর মাংস খাওয়ার নিয়ম-

গরুর মাংস খাওয়ার অনেক উপকারিতা রয়েছে, এতে ফার্স্ট ক্লাস প্রোটিন রয়েছে, যা অন্যান্য শাকসবজি ফলমূল মিলিয়ে খেলেও পাওয়া যায় না। এছাড়াও আইরন, জিংক, ভিটামিন বি১২ প্রচুর পরিমাণে রয়েছে যা আমাদের রক্ত তৈরি করতে সাহায্য করে।

এছাড়াও আছে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম যা হাড় ও মাংসপেশী গঠনে সাহায্য করে।

আছে কোলেস্টেরল যা আমাদের ত্বক চুল হরমোন ও যৌন স্বাস্থ্যর উন্নতি সাধন করে।

আবার গরুর মাংস বেশি খেলে ক্যান্সার ও হৃদরোগ এর ঝুঁকি বেশি রয়েছে, তাই নিয়ন্ত্রিত মাত্রায় গরুর মাংস খাওয়া উচিত।

দিনে ৭৫ গ্রামের বেশি মাংস খাবেন না।
সবচেয়ে ভালো হয় প্রতি সপ্তাহে একবার পরিমাণ মতো খেলে।

মাংস বেশি পুড়িয়ে বা ভেজে খাবেন না, এবং লবণ মিশ্রিত ও প্রসেস্ট গরুর মাংস (দোকানে তৈরি) খাওয়া একদম নিষেধ কারণ এতে সরাসরি ক্যান্সারের কেমিক্যাল তৈরি হয়ে যায়।

অল্প আচে মাংস সিদ্ধ করে এরপর খাবেন।
গর্ভবতী মায়েরা কলিজা খাবেন না, এতে ভিটামিন এ এর পরিমাণ বেশি যা গর্ভাবস্থায় বেশি খেলে গর্ভের বাচ্চার ক্ষতি হয়।

যাদের ডায়বেটিস হৃদরোগ রক্তে কোলেস্টেরল এর সমস্যা রয়েছে, তারা খুবই অল্প গুরুর মাংস টেস্ট করতে পারেন।

যাদের কিডনিতে সমস্যা রয়েছে তারা রেনাল ডায়েট অনুসারে আপনার চিকিৎসকের কাছ থেকে গরুর মাংস খাওয়া যাবে কিনা, বা কতটুকু খেতে হবে তা জেনে নিবেন।

বি:দ্র:- সকল ধরনের লাল মাংসের (গরু, মহিষ, খাসি, ভেড়া, দুম্বা, উট ইত্যাদি) ক্ষেত্রে একই নিয়ম।

ধন্যবাদ।
লেখক- ডা: আখতার ঊজ জামান সজীব।
এ কে এম এম সি, ব্যাচ-০৩

Leave a Reply

Your email address will not be published.