সন্তানের মরদেহ আনতে প্রয়োজন ঘুষ, ভিক্ষায় নেমেছেন বাবা-মা!

সন্তানের জন্য মা-বাবার দোয়ার বিকল্প হয় না। সন্তানের জন্মের পর থেকে তাকে লালন-পালনের জন্য বাবা-মা যে ত্যাগ স্বীকার করেন, তার ঋণ কখনও শোধ হওয়ার নয়। তারা তাদের সন্তানের জন্য সবকিছুই করতে পারেন। সম্প্রতি সরকারি হাসপাতাল থেকে এক যুবকের মরদেহ আনতে গেলে তার বাবা-মায়ের কাছে ৫০ হাজার রুপি ঘুষ চাওয়া হয়। এ জন্য রাস্তায় নেমে ভিক্ষা করছেন অসহায় বাবা-মা।

মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের বিহারে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির একটি প্রতিবেদনে এমনটি জানানো হয়েছে।
এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, বিহারের সমষ্টিপুরের সরকারি হাসপাতাল থেকে এক যুবকের মরদেহ আনতে গেলে তার বাবা-মায়ের কাছে ৫০ হাজার রুপি ঘুষ চাওয়া হয়। এরপর সেই টাকা যোগাড় করতে ভিক্ষায় নেমে পড়েন বৃদ্ধ বাবা-মা। এরইমধ্যে এ ঘটনার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

নিহত ওই যুবকের বাবা জানান, তার ছেলে কিছুদিন ধরে নিখোঁজ ছিলেন। পরে সমষ্টিপুরের সদর হাসপাতাল থেকে জানানো হয়, তার সন্তানের মরদেহ সেখানে রয়েছে। কিন্তু আনতে ৫০ হাজার রুপি প্রয়োজন। অভিযোগ রয়েছে, সমষ্টিপুরের সরকারি হাসপাতালের বেশিরভাগ স্বাস্থ্যকর্মী সময়মতো বেতনভাতা পান না। রোগীর আত্মীয় স্বজনদের কাছ থেকে টাকা নিয়েই চলতে হয় তাদের।

এ নিয়ে সমষ্টিপুরের সিভিল সার্জন ডা.এসকে চৌধুরী ভারতীয় বার্তা সংস্থা এএনআইকে বলেন, যারা এর সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দায়ীদের রেহাই দেওয়া হবে না।

সূত্র: এনডিটিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published.