সরকারি হাসপাতালের চেয়ে বেশি ভরষা বেসরকারী হাসপাতাল-ভূয়া নার্স এ ভরপুর ক্লিনিকগুলো

সরকারি হাসপাতালে কাঙ্ক্ষিত সেবা না পেয়ে মানহীন অবৈধ ক্লিনিকে যেতে বাধ্য হচ্ছে সাধারণ মানুষ। অদক্ষ নার্স আর ভুয়া চিকিৎসকের পাল্লায় পড়ে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকি এমনকি মৃত্যুর মুখে পড়তে হচ্ছে অনেককে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জেলা উপজেলায় সরকারি হাসপাতালের সঠিক ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করার মাধ্যমেই চিকিৎসা সেবার মান নিশ্চিত করা সম্ভব।সরকারি হাসপাতালে ভোগান্তির অভিযোগ নতুন নয়। শয্যা না পেয়ে বাইরে অপেক্ষা করতে হয় মুমূর্ষু রোগিদেরও। চিকিৎসা পেতে অন্তহীন ভোগান্তির কথা জানান ভুক্তভোগিরা।

রাজধানীর পঙ্গু হাসপাতালে ঢুকতেই চোখে পড়বে সংঘবদ্ধ দালালচক্র। সেবা না পাওয়া রোগিদের তারা সহজেই মানহীন ক্লিনিকে নিয়ে যায়।

দেশ সেরা চিকিৎসক আর আধুনিক চিকিৎসা সুবিধা রেখে বিভ্রান্ত রোগিরা পা বাড়ান অবৈধ ক্লিনিকে। এই অবস্থার জন্য সরকারি হাসপাতাল ব্যবস্থাপনার ক্রুটিকে দায়ী করেন বিশেষজ্ঞরা।

এ ব্যাপারে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. বে-নজীর আহমেদ বলেন, ‘উপজেলায় ৯০ শতাংশ অপচয় হচ্ছে, মানে বেড খালি। আবার জেলা হাসপাতাল দেখবেন ওভার। আপনি যদি জেলা হাসপাতালকে এত ওভার দেন, তাহলে চিকিৎসার মান ভালো হবে না। আমাদের উচিৎ হলো বেস্ট ইউটিলাইজেশন করা। তার মানে কম রোগী দেওয়া। একটা প্লাস্টার করবে উপজেলা হেলথ কমপ্লেক্স, এটা করতে কেনো ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাতপাতালে আসবে? একটা রিং পরানো এটা করবে জেলা হাসপাতাল। এটা করতে কেনো এনআইসিপিডিতে আসবে? এই একটা ওভারঅল মিস ম্যানেজমেন্ট।’

জেলা উপজেলা পর্যায়ে চিকিৎসা সেবার মান বাড়িয়ে রোগীদের রাজধানী বা বড় শহরমুখী হওয়ার প্রবণতা রোধ করার পরামর্শ স্বাস্থ্যখাতের বিশেষজ্ঞদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published.