সরকারিভাবে নার্সিং ভর্তি হতে কী কী কাগজপত্র লাগবে

বাংলাদেশ নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কাউন্সিলের অধীনে নার্সিং ভর্তি পরীক্ষায় মেধাতালিকার ভিত্তিতে সুযোগ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের ভর্তির জন্যে এক সপ্তাহ সময় পাওয়া যাবে।

এই সময়ের মধ্যে নিম্নে বর্ণিত কাগজপত্র প্রস্তুত করে সংশ্লিষ্ট কলেজ /ইন্সটিটিউট জমা দিয়ে ভর্তি কার্যক্রম সম্পূর্ণ করতে হবে।

আজকে আমরা জানবো কীভাবে ভর্তি বাচাই কার্যক্রম ও পরবর্তী তে ভর্তি হতে কী কী কাগজপত্র লাগবে সে সম্পর্কে বিস্তারিত

.ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত অন্যান্য তথ্য স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ ওয়েবসাইট www.mefwd.gov.bd বিএনএমসি’র ওয়েবসাইট www,bnmc.gov.bd এবং নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট www.dgnm.gov.bd হতে জানা যাবে ।
.প্রার্থী মুল্যায়ণ ও নম্বর বিভাজনঃ
(ক) এসএসসি ও এইচএসসি (সমমান) এর জিপিএ এবং প্রার্থীর লিখিত পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে প্রার্থী মূল্যায়ণ করা হবে।

এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-এর ৪ গুনিতক = ২০ নম্বর (সর্বোচ্চ।

এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-এর ৬ গুনিতক = ৩০ নম্বর (সর্বোচ্চ)

MCQ পদ্ধতিতে লিখিত পরীক্ষা
= ১০০ নম্বর সর্বমোট নম্বর = ১৫০নম্বর

(খ) লিখিত পরীক্ষার পাশ নম্বর ৪০ (চল্লিশ)।

• বিএসসি ইন নার্সিং কোর্সের বিষয় ভিত্তিক নম্বর বিভাজন ৪ বাংলা-২০, ইংরেজি-২০, গণিত-১০, বিজ্ঞান-৩০ (জীববিজ্ঞান, পদার্থ ও রসায়ন)এবং সাধারণ জ্ঞান-৯০ অর্থাৎ সর্বমােট ১০০ নম্বরের MCQ পদ্ধতিতে লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।

• ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্স এন্ড মিডওয়াইফারি ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি কোর্সের জন্য বিষয় ভিত্তিক নম্বর বিভাজন ও বাংলা-২০,ইংরেজি- ২০, গণিত-১০, সাধারণ বিজ্ঞান-২০ এবং সাধারণ জ্ঞান-২৫ অর্থাৎ সর্বমােট-১০০ নম্বরের MCQ পদ্ধতিতে লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।

(গ) পাশকৃত প্রার্থীদের মধ্যে মেধাতালিকা ও পছন্দক্রমের ভিত্তিতে সরকারি প্রতিষ্ঠানে এবং অবশিষ্ট উত্তীর্ণ প্রার্থীরা মেধাক্রমের ভিত্তিতে নির্ধারিত আসনে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযােগ পাবেন। অকৃতকার্য কোন প্রার্থী সরকারি ও বেসরকারি কোন নার্সিং ও মিডওয়াইফারি শিক্ষা
প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযােগ পাবেন না।

জাতীয় মেধা তালিকা ও প্রার্থী নির্বাচনঃ
(ক) বিএসসি ইন নার্সিং ও ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্স এন্ড মিড় ওয়াইফারি কোর্সে সরকারি প্রতিষ্ঠানে ১০% ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ২০% পুরুষ এবং ডিপ্লোমা ইন মিডওয়াইফারি কোর্সে কেবলমাত্র নারী প্রার্থীগণকে অন্যান্য শতাবলি, মেধাক্রম ও কোটার ভিত্তিতে প্রার্থী নির্বাচন করা হবে।

(খ) প্রাপ্ত মােট নম্বরের ভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষায় কৃতকার্য প্রার্থীদের জাতীয় মেধা তালিকা (বিশেষ কোটা যদি থাকে উল্লেখসহ) স্বাস্থ্য ও শিক্ষা পরিবার কল্যাণ বিভাগ, ডিজিএনএম এবং বিএনএমসি এর ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে।
(গ) সরকারি নার্সিং কলেজ/ইনস্টিটিউট এ মুক্তিযােদ্ধার সন্তান এবং সন্তানের সন্তানদের জন্য মােট আসনের ২% সংরক্ষিত থাকবে। অবশিষ্ট
৯৮% আসনের মধ্যে ৬০% প্রার্থী জাতীয় মেধা এবং ৪০% প্রার্থী জেলা কোটায় নির্বাচন করা হবে।
(ঘ) নির্বাচিত প্রার্থীদের অর্জিত মেধাক্রম এবং নার্সিং কলেজ/ইনস্টিটিউট পছন্দের ভিত্তিতে প্রার্থী কোন সরকারি প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হবেন, তা
স্বয়ংক্রিয়ভাবে নির্বাচন করা হবে।
(৪) ডিপ্লোমা কোর্সের ক্ষেত্রে তাদের কোর্স পছন্দক্রমের ভিত্তিতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে কোর্স নির্ধারিত হবে।
(চ) মুক্তিযােদ্ধা কোটার দাবীদার সন্তানদের সন্তান এর ক্ষেত্রে সরকার কর্তৃক জারিকৃত বিধি-বিধান অনুসরণ করা হবে।
(ছ) পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী/নির্বাচিত কোন প্রার্থীর দেয়া তথ্য (যা ফলাফল নির্ধারণে বিবেচিত হয়) অসম্পূর্ণ বা ভুল প্রমাণিত হলে তার
পরীক্ষা/ফলাফল ভর্তি বাতিল বলে গণ্য হবে।
(জ) কোন প্রার্থী আবেদনকারী মুক্তিযােদ্ধা বা অন্য কোন কোটা ভুল করে পূরণ করলে টাকা জমা দেয়ার পূর্বে নতুনভাবে ফরম পূরণ করতে
পারবেন।
(ঝ) পরীক্ষার ফলাফল প্রার্থীর মােবাইলে SMS এবং স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ www.mefwd.gov.bd,
ডিজিএনএম www.dgnm.gov.bd এবং বিএনএমসি www.bnmc.gov.bd ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে জানানাে হবে।
১১. নির্বাচিত প্রার্থীকে ভর্তির সময় নিম্নলিখিত কাগজপত্র জমা দিতে হবে।
শিক্ষাবাের্ড হতে প্রাপ্ত এসএসসি বা সমমান ও এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার মূল্য সাময়িক সনদপত্র;
(খ) শিক্ষাবাের্ড হতে প্রাপ্ত এসএসসি বা সমমান ও এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার মূল একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট/গ্রেডশীট/ মার্কশীট;
(গ) সদ্য তােলা পাসপাের্ট সাইজের ০৩ (তিন) কপি সত্যায়িত (প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তার নামসহ সীলমােহর) রঙ্গিন ছবি।
মুক্তিযােদ্ধা কোটায় (মুক্তিযােদ্ধার সন্তান/সন্তানের সন্তানদের) সংরক্ষিত আসনের জন্য সংশ্লিষ্ট মুক্তিযােদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের
মাননীয় মন্ত্রী/প্রতিমন্ত্রী ও সচিব স্বাক্ষরিত সনদপত্র বা ১৯৯৭ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ মুক্তিযােদ্ধা সংসদ কর্তৃক প্রদত্ত
ও তৎকালীন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রতিস্বাক্ষরিত সনদপত্রের সত্যায়িত অনুলিপি;
(৪) বর্ণিত কোর্সে আবেদনের ডাউনলােডকৃত রঙ্গিন ছবি সম্বলিত ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র;
উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোের্ড ও অন্যান্য কারিকুলাম হতে পাশকৃত নির্বাচিত প্রার্থীগণ
এসএসসি বা সমমান এবং এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার সনদপত্রসমূহ নিজ দায়িত্বে বাের্ড/বিশ্ববিদ্যালয় হতে
সঠিকতা যাচাই (ভেরিফাই) করে কোর্সে ভর্তি হবেন;
(ছ) জেলা কোটা দাবির ক্ষেত্রে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান/পৌরসভার মেয়র/ সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর এর নিকট হতে
গৃহীত নাগরিকত্ব সনদ/জন্ম নিবন্ধন পত্র দাখিল করতে হবে।

১২. অন্যান্য লক্ষণীয় বিষয়াবলি।
প্রার্থী কোন প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযােগ পাবেন তা নির্ভর করবে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীগনের সর্বমােট প্রাপ্ত নম্বৱেৱ ও প্রার্থী কর্তৃক প্রদত্ত পছন্দ ক্রমানুসারে ।
(খ) প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত প্রার্থীদের, প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনায় স্বাস্থ্য পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে ভর্তিযােগ্য বলে বিবেচিত হবেন।
(গ) ভর্তি সংক্রান্ত যে কোন বিষয়ে কেন্দ্রীয় নির্বাচন ভর্তি কমিটির সিদ্ধান্তই চুড়ান্ত মর্মে বিবেচিত হবে।
১৩, সরকারি প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নকালে নির্ধারিত হারে মাসিক বৃত্তি (স্টাইপেন্ড) প্রদান করা হবে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.